25 C
Kolkata
Thursday, December 1, 2022
বাড়িUncategorizedরাষ্ট্রসঙ্ঘের সভায় রাশিয়াকে নিরাপত্তা পরিষদ থেকে সরানোর দাবি জানান জেলেনস্কি !

রাষ্ট্রসঙ্ঘের সভায় রাশিয়াকে নিরাপত্তা পরিষদ থেকে সরানোর দাবি জানান জেলেনস্কি !

রাশিয়া ইউক্রেন যুদ্ধ পুরো বিশ্বের ঘুম উড়িয়েছে। রাশিয়ার এই সামরিক অভিযান সমস্ত দেশ নিন্দা করেছে। যুদ্ধ শুরুর প্রথম থেকেই আন্তর্জাতিক মহলের কাছ ইউক্রেন সাহায্য চেয়েছে। কিন্তু সেভাবে কেউ তাদের দিকে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেয়নি। এমনকি ন্যাটোও(NATO) মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে। অন্যদিকে, গত সপ্তাহ থেকে রুশ সেনা ইউক্রেন ছাড়তে শুরু করেছে কিন্তু তাদের অমানবিক কাজের প্রমাণ মিলছে দেশের বিভিন্ন শহরে। সেখানে তারা বিনা কারণে গণহত্যা করেছে ইউক্রেনীয়দের। এর তীব্র নিন্দা করে রাষ্ট্রসঙ্ঘে ক্ষোভে ফেটে পড়েন ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভোলোদিমির জেলেনস্কি। তিনি বলেন, “হয় এখনই কোনও পদক্ষেপ গ্রহণ করুন, নাহলে রাষ্ট্রসঙ্ঘই তুলে দিন।” রাষ্ট্রসঙ্ঘের সভায় তিনি রুশ বাহিনীর হামলায় দেশের দুর্দশা ও ভয়ঙ্কর পরিস্থিতি তুলে ধরেন।

রাশিয়া রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদের স্থায়ী সদস্য হওয়ায় তাদের কাছে ভেটো ক্ষমতা রয়েছে

বুচা, কিয়েভ সহ একাধিক শহরে রাস্তাতে হাত-পা বাঁধা মৃতদেহ দেখা যাচ্ছে। সেই ভিডিয়োই তুলে ধরে তিনি রুশ বাহিনীর নৃশংসতা দেখান। রাষ্ট্রসঙ্ঘের ১৫ জন সদস্যের পরিষদের কাছে জ়েলেনস্কি বলেন, ইউক্রেনের শহরগুলিতে রাশিয়া যে হিংসার প্রকাশ করেছে, তা ইসলামিক স্টেটস গ্রুপের সন্ত্রাসবাদী আচরণের থেকে কিছু কম নয়। ইউক্রেনে এমন নৃশংস হত্যালীলা চালানোর জন্য রাশিয়াকে নিরাপত্তা পরিষদ থেকে বহিস্কার করার দাবি জানান জেলেনস্কি। তিনি বলেন এটি না হলে রাশিয়ার হিংস্রতা, বর্বরতা কিছুতেই আটকানো যাবেনা।রাশিয়া রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদের স্থায়ী সদস্য হওয়ায় তাদের কাছে ভেটো ক্ষমতা রয়েছে, যেটি ব্যবহার করেই তাদের বিরুদ্ধে যাতে কোনও পদক্ষেপ গ্রহণ না করা যেতে পারে সেই ব্যাবস্থা করছে রাশিয়া।

কিন্তু সেই সভায় রাষ্ট্রসঙ্ঘ কোনও পদক্ষেপ গ্রহণ করবেনা বলেই জানিয়ে দেয়। ফলে জেলেনস্কি ক্ষুব্ধ হয়ে বলুন রাষ্ট্রসঙ্ঘ তুলে দিতে। তিনি বলেন, “উপস্থিত মাননীয় ব্যক্তিরা, আপনারা কি রাষ্ট্রসঙ্ঘকে বন্ধ করে দিতে প্রস্তুত? আন্তর্জাতিক আইনও কি তাহলে আর নেই? যদি আপনাদের উত্তর না হয়, তবে দ্রুত পদক্ষেপ গ্রহণ করুন।” জেলেনস্কির চোখে যুদ্ধের বীভৎসতা ফুটে উঠছিল। তবুও তিনি পিছু সরতে রাজি নন। রাষ্ট্রসঙ্ঘের মঞ্চে তিনি ভিডিয়োর মাধ্যমে দেখান কীভাবে বুচায় রাস্তাঘাটে সারি সারি মৃতদেহ পড়ে রয়েছে এবং তাদের মধ্যে ছোট ছোট বাচ্চাদের দেহও রয়েছে। জ়েলেনস্কি বলেন, “বাড়ি বা অ্যাপার্টমেন্টে ঢুকে হত্যা করা হয়েছে, গ্রেনেড দিয়ে উড়িয়ে দেওয়া হয়েছে।

সাধারণ নাগরিক যখন গাড়িতে করে রাস্তা দিয়ে যাচ্ছিলেন, তাদের ট্যাঙ্কার দিতে চাপা দিয়ে দেওয়া হয়েছে কেবলমাত্র নিজেদের খুশির জন্য। হাত পা কেটে নেওয়া হয়েছে, গলা কেটে দেওয়া হয়েছে। সেখানকার মহিলাদের তাদের সন্তানদের সামনেই ধর্ষণ করা হয়েছে। তাদের জিভ উপড়ে নেওয়া হয়েছে যাতে কোনও কথা না শুনতে হয়। এটা দায়েশ জঙ্গিদের কার্যকলাপের থেকে কিছু আলাদা নয়। আর এটা রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদের এক সদস্যই করছে।” ভারত এই ঘটনার তীব্র সমালোচনা করেছে এবং নিরপেক্ষ, স্বাধীন তদন্তের দাবি জানিয়েছে। কিন্তু রাশিয়া এই অভিযোগ মানতে নারাজ। তারা সমস্ত কিছু অস্বীকার করেছে। এবার রাষ্ট্রসঙ্ঘের দিকে তাকিয়ে সবাই।

রাষ্ট্রসঙ্ঘের সভায় রাশিয়াকে নিরাপত্তা পরিষদ থেকে সরানোর দাবি জানান জেলেনস্কি !

আপনার মতামত দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

%d bloggers like this: