25 C
Kolkata
Friday, February 3, 2023
বাড়িদেশ বিদেশনানা রাজ্যে ধর্মীয় মিছিলকে ঘিরে উত্তেজনার জেরে বড় সিদ্ধান্ত যোগী সরকারের

নানা রাজ্যে ধর্মীয় মিছিলকে ঘিরে উত্তেজনার জেরে বড় সিদ্ধান্ত যোগী সরকারের

সম্প্রতি বেশকয়েকটি রাজ্যে রাম নবমী ও হনুমান জয়ন্তীর ধর্মীয় মিছিলকে কেন্দ্র করে সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠী সংঘর্ষ হয়। এই সংঘর্ষের ফলে অনেক মানুষ আহত হন, বাড়ি ঘর ভাঙচুর পর্যন্ত করা হয়। বিজেপি শাসিত বেশ কয়েকটি রাজ্যেও পরিস্থিতি খারাপ হয়ে ওঠে। এবার বিপুল সংখ্যা গরিষ্ঠতা নিয়ে উত্তরপ্রদেশে দ্বিতীয়বার ক্ষমতায় আসে যোগী আদিত্যনাথ। ক্ষমতায় আসার পরই ধর্মীয় মিছিল নিয়ে নড়েচড়ে বসল বিজেপি সরকার। গতকাল উত্তর প্রদেশ সরকারের পক্ষ থেকে একটি নির্দেশিকা প্রকাশ করে জানিয়ে দেওয়া হয়, এখন থেকে রাজ্য কোনও ধর্মীয় মিছিল বের করতে হলে সেই আয়োজকদের অবশ্যই হলফনামা দিতে হবে।

আগামী মাসে অক্ষয় তৃতীয়া ও ঈদ একই দিনে পড়ায় কোনও রমক ঝুঁকি নিতে চাননা যোগী আদিত্যনাথ

বিভিন্ন রাজ্যে হওয়া হিংসার ঘটনা নিয়ে উত্তেজনা যখন চরমে তখন উত্তরপ্রদেশ সরকারের এই নির্দেশিকা যথেষ্টই তাৎপর্যপূর্ণ বলেই মনে করছেন রাজনৈতিক মহল। গতকাল রাজ্যের শীর্ষ প্রশাসনিক আধিকারিকদের সঙ্গে বৈঠকে বসেছিলেন যোগী আদিত্যনাথ। সেই বৈঠকেই পুলিশ আধিকারিকদের কড়া নজরজদারির নির্দেশ দেন তিনি। আগামী মাসে অক্ষয় তৃতীয়া ও ঈদ একই দিনে পড়ায় কোনও রমক ঝুঁকি নিতে চাননা যোগী আদিত্যনাথ। ফলে নির্দেশিকা জারি করে বলা হয় “সৌহার্দ্য ও শান্তি বজায় রাখতে কোনও ধর্মীয় মিছিলের আগে আয়োজকদের অবশ্যই হলফনামা দিতে হবে।সেই ধর্মীয় মিছিলগুলিকেই অনুমতি দেওয়া হবে যেগুলি দীর্ঘদিন ধরে চলে আসছে। নতুন কোনও কর্মসূচিকে অনুমতি দেওয়া হবে না।”

দুই ধর্মালম্বীদের উৎসবের কথা মাথায় রেখে শান্তি বজায় রাখার জন্য পুলিশের শীর্ষস্তর থেক নিচু তলার পুলিশ কর্মীদের আগামী একদিনের মধ্যে সংশ্লিষ্ট এলাকার ধর্মীয় নেতা ও গুরুত্বপূর্ণ নাগরিকদের সঙ্গে কথা বলার নির্দেশ দিয়েছেন যোগী । এই ধর্মীয় সংঘর্ষের পরিপ্রেক্ষিতে মহারাষ্ট্রের কংগ্রেস সভাপতি নানা পাটোলেও রাজ্য সরকারকে ধর্মীয় মিছিল বন্ধ করার আবেদন জানিয়েছিল। তিনি বলেন , “যেসব মিছিল থেকে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিঘ্নিত হওয়ার আশঙ্কা আছে সেইগুলি বন্ধ করে দেওয়া উচিৎ।”

MNS প্রধান রাজ ঠাকরের মসজিদের বাইরে থেকে মাইক খোলা নিয়ে হুঁশিয়ারি দেওয়ার পরই এই মন্তব্য করেছিলেন তিনি। এমনকি সরকারকে মে মাসের ৩ তারিখ অবধি চরম সময়সীমা দিয়েছিলেন তিনি। আগামী ১ মে মহারাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা দিবসের দিন তিনি একটি সভা করবেন বলে জানা যাচ্ছে। দিন দিন ধর্মের নামে দাঙ্গা লেগেই আছে। আমাদের সকলকেই একটি কথা মনে রাখতে হবে সবার আগে আমরা মানুষ তাই সবার ধর্মকেই সম্মান করা উচিত। এমন কোনো কিছু করা উচিত নয় যারফলে কোনো মানুষের কোনো ক্ষতি হয়।

নানা রাজ্যে ধর্মীয় মিছিলকে ঘিরে উত্তেজনার জেরে বড় সিদ্ধান্ত যোগী সরকারের

আপনার মতামত দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

%d bloggers like this: