25 C
Kolkata
Monday, October 3, 2022
বাড়িস্বাস্থ্যমানুষের সুস্থ থাকার একমাত্র উপায় ওজন সঠিক রাখা

মানুষের সুস্থ থাকার একমাত্র উপায় ওজন সঠিক রাখা

ওজন’ (weight) এই তিনটি শব্দ মানুষের জীবনে এক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নির্ধারণ করে। মানুষের সুস্থ থাকার একমাত্র উপায় ওজন সঠিক রাখা। ওজন স্বাভাবিক রাখা প্রতিটি মানুষের জন্যই খুব প্রয়োজনীয়। কারণ অতিরিক্ত ওজনের ফলে মানব দেহে দেখা যায় নানান রকমের রোগের প্রাদুর্ভাব। এমত অবস্থায় প্রত্যেক মানুষকে নিজের ওজন যাতে নিয়ন্ত্রণে থাকে সেটার দিকে নজর দিতে হবে। কারণ একমাত্র ওজন কম থাকলেই শরীর সুস্থ থাকবে। তাই এবার জেনে নেওয়া যাক ওজন কমিয়ে নেওয়ার পদ্ধতি। ওবেসিটি একটি রোগ। ওজন বেশি থাকলে মানুষকে ফ্যাটবহুল দেখায়। ঠিক একই রকম ভাবে শরীরের বিভিন্ন অঙ্গে ফ্যাট (Fat) জমে। এরপর দেখা যায় দূরারোগ্য বিভিন্ন রোগ যা মানুষকে তিলে তিলে শেষ করে দেয়।

সুগার (Diabetes), প্রেসার ( Pressure), কোলেস্টেরলের (Cholesterol) মতো সমস্যা দেখা দিতে পারে। বিভিন্ন গেষণায় প্রমাণিত যে, ওজন বেশি থাকার কারণে মানুষের ক্যানসারের প্রবণতা (Cancer risk) বাড়ছে। বিভিন্ন কারণে মানুষের ওজন বাড়ে যার অন্যতম কারণ অনিয়মিত জীবনযাপন ও খাদ্যাভ্যাস। ছোটো থেকে বড় সকলেই এখন ঘরের খাবারের তুলনায় বাইরের খাবার খেতে বেশি অভ্যস্ত। এর ফলে মানব দেহে তৈলাক্ত (oil) ও শর্করা (suger) জাতীয় উপাদান প্রয়োজনের তুলনায় অনেক বেশি হয়ে যায়। ফল স্বরূপ ওজন বাড়ে।আর একটি অন্যতম কারণ অলস জীবনযাপন। কিছু মানুষ সকাল থেকে রাত পর্যন্ত মাথা (brain) খাটিয়ে কাজ করছেন। সেক্ষেত্রে তার শারীরিক কোনো পরিশ্রম হচ্ছে না।

এর ফলে ওজন বাড়ছে। এই সকল সমস্যার কিছু সমাধান রইলো। ওজন কমানোর জন্য খাদ্য তালিকায় প্রোটিন জাতীয় খাবার রাখতে হবে। প্রোটিন জাতীয় খাবার খেলে শরীরে পেশির পরিমাণ বাড়ে, বিপাকের হার ভালো থাকে। রেডমিট খওয়া যাবে না। কারণ রেদমিট খেলে শরীরে চর্বি সঞ্চয় হয়। ফলস্বরূপ হৃদরোগ(Heart problem),স্ট্রোক(strock) সহ বিভিন্ন রোগের আগমন ঘটে।ঘুমের সাথে ওজনের এক অদ্ভুত যোগ আছে। সঠিক ঘুম শরীরের অনেক রোগের সমাধান। একটি গবেষণায় দেখা গেছে, সঠিক ঘুমের ফলে মানুষের খাবারের বিপাক ভালো হয়। ফলে ওজন বাড়ার সম্ভাবনা অনেক কমে যায়। এমনকি দ্রুত ওজন কমে। একটি মানুষ যদি ৭ ঘণ্টা ঘুমায় তবে তার ওজন কমতে পারে।

সঠিক ঘুমের ফলে মানুষের খাবারের বিপাক ভালো হয়।

কিন্তু যে সকল মানুষ কম সময় ঘুমায় অর্থাৎ ৫ ঘণ্টার কম ঘুমায় তাদের ওজন বাড়ার সম্ভাবনা ৩২ শতাংশ। তাই পর্যাপ্ত পরিমাণ ঘুম অত্যন্ত জরুরি।বহু মানুষ সারা বছর অর্থাৎ গ্রীষ্ম, বর্ষা এবং শীত সকল ঋতুতেই চাদর গায়ে দিয়ে ঘুমান। এটি একটি খুব ক্ষতিকর একটি অভ্যাস। কারণ চাদর জড়িয়ে ঘুমালে বিপাকের হার কমে। ফলে ফ্যাট (Fat) জমতে শুরু করে। তাই সব ঋতুতে চাদর জড়িয়ে ঘুমানোর অভ্যাস ত্যাগ করতে হবে। রাতে ঘুমানোর আগে স্নান করলে এই সমস্যার সমাধান হতে পারে। কারণ স্নান করে ঘুমালে শরীরে বিপাকের হার অনেক বেড়ে যায়। ফলে ওজন দ্রুত কমে।

তাই প্রতিটি মানুষের রাতে ঘুমানোর আগে স্নান করে ঘুমানো উচিত। গরকালে স্নান করে ঘুমালে, ঘুম ভালো হয়। এরফলে ওজনও কমে ঘুমও ভালো হয়।সাঁতার (Swime) হল একটি আরবিক এক্সারসাইজ (Arabic Exercise)। এই একটি ব্যায়াম এর মাধ্যমে গোটা শরীরের ব্যায়ম হয়। সাঁতারের দ্বারা খুব দ্রুত ওজন কমে। অন্যদিকে সাঁতার কাটলে হৃদপিণ্ড এবং ফুসফুস সুস্থ থাকে। যারা রোজ সাঁতার কাটেন, তাঁদের হার্টের সমস্যা অনেক কমে যায়। আর্থ্রাইটিসের সমস্যা থাকলে বা হাঁটু, পায়ের ব্যাথা থাকলেও সাঁতার এক অন্যতম ওষুধ।

মানুষের সুস্থ থাকার একমাত্র উপায় ওজন সঠিক রাখা

আপনার মতামত দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

%d bloggers like this: