25 C
Kolkata
Thursday, December 1, 2022
বাড়িদেশ বিদেশদেশবাসীর অভিযোগ পরিবারবাদের জন্যই শ্রীলঙ্কার মানুষের এমন দুর্দশা !

দেশবাসীর অভিযোগ পরিবারবাদের জন্যই শ্রীলঙ্কার মানুষের এমন দুর্দশা !

বর্তমানে শ্রীলঙ্কার অবস্থা অনেক খারাপ। চরম খাদ্য সংকট দেখা দিয়েছে দেশ জুড়ে। জিনিসপত্রের দাম আকাশছোঁয়া। মানুষের দুবেলা খাবার জোটাও মুশকিল হয়ে উঠছে। এরইমাঝে শ্রীলঙ্কার দিকে সাহায্যের হাত বাড়ল ভারত। ভারত থেকে শ্রীলঙ্কায় ২ লাখ ৭০ হাজার মেট্রিক টন জ্বালানি পাঠানো হল। শ্রীলঙ্কার মোট জনসংখ্যা প্রায় ২২ কোটি। সেখানে এখন অর্থনৈতিক মন্দা চলছে।সেখানে ক্রমশ ফুরিয়ে আসছে জ্বালানির ভান্ডার। খাবারের অভাব দেশের মানুষকে অস্থির করে তুলেছে। প্রতিদিনই মানুষ বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেছে। সেখানে বিদ্যুৎ নেই, পেট্রল ডিজেল নেই, খাবার নেই। রাজনৈতিক অস্থিরতা বর্তমানে তুঙ্গে। অনেকেই মনে করছেন আরও খারাপ অবস্থা ঘনিয়ে আসছে শ্রীলঙ্কার উপর।

এমন সময় ভারতের এই সাহায্যে শ্রীলঙ্কাবাসী অনেকটাই আপ্লুত। শ্রীলঙ্কার প্রাক্তন ক্রিকেটার সনৎ জয়সূর্য থেকে শুরু করে সবাই ভারতকে ধন্যবাদ জানাচ্ছে। শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্ট রাজাপক্ষ পরিবারের বিরুদ্ধে সুর চড়াচ্ছেন হাজার হাজার মানুষ। এই আন্দোলনে মূলত ছাত্রছাত্রীরাই নেতৃত্বে আছে। আন্দোলনকারীদের অভিযোগ, নিজেদের স্বার্থে গোটা দেশকে লুঠ করেছে রাজাপক্ষ পরিবার। বর্তমানে এই পরিবারের এক ভাই মাহিন্দা রাজাপক্ষ দেশের প্রধানমন্ত্রী এবং তাঁর ভাই গোতাবায়া রাজাপক্ষ প্রেসিডেন্ট। মাহিন্দার ছেলেও বর্তমানে মন্ত্রিসভার সদস্য। গোটা দেশবাসীর অভিযোগ, রাজাপক্ষ পরিবারই শ্রীলঙ্কাকে ধ্বংস করে দিয়েছে। তাদের এই দুর্দশার জন্য একমাত্র রাজাপক্ষের পরিবারই দায়ী। আন্দোলনকারীরা রাস্তায় নেমে সরকারের বিরুদ্ধে সুর চড়ান।

তাঁদের গলায় শোনা যায়, “গোটা গোতা গো। আপনি ভুল প্রজন্মের সঙ্গে সংঘাতে নেমেছেন। আমাদের দেশকে ধ্বংস করা বন্ধ করুন। আমাদের থেকে চুরি করা টাকা ফেরত দিন।” রাজধানীর রাজপথে যখন এই আন্দোলন চলছে, তখন সেখানে কোনও পুলিশ বা নিরাপত্তাকর্মীকে দেখা যায়নি। অবস্থা খারাপ দেখে জারি করা হয়েছিল ‘জরুরি অবস্থা’ । কিন্তু তারপরেই সেটি প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়। এরই মধ্যে ক্যাবিনেট থেকে ইস্তফা দিয়েছেন অধিকাংশ মন্ত্রী। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী মহিন্দা রাজাপক্ষে এখনও নিজের পদে আসীন রয়েছেন। এই সময় রাষ্ট্রপতি বিরোধীদের সরকারে যোগ দেওয়ার আহ্বান জানানোয় নতুন মন্ত্রিসভা গঠনের ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে। কিন্তু এতেও কোনো লাভ হবে কিনা তা সময় বলবে।

দেশবাসীর অভিযোগ পরিবারবাদের জন্যই শ্রীলঙ্কার মানুষের এমন দুর্দশা !

আপনার মতামত দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

%d bloggers like this: