25 C
Kolkata
Sunday, September 25, 2022
বাড়িদেশ বিদেশশ্রীলঙ্কাকে ডিজেল সরবরাহের মাধ্যমে সাহায্যের হাত বাড়াল ভারত

শ্রীলঙ্কাকে ডিজেল সরবরাহের মাধ্যমে সাহায্যের হাত বাড়াল ভারত

চরম আর্থিক সঙ্কটের মধ্যে শ্রীলঙ্কা (Sri Lanka)। করোনাকালে দেশের বাণিজ্য,শিল্প সহ একাধিক ক্ষেত্র থমকে দাঁড়ানোয় ফলে বিপুল আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়েছে প্রতিবেশী দেশ। তার উপরে চিনের কাছ থেকে নেওয়া ঋণের সুদের বোঝায় আরও ডুবে গিয়েছে শ্রীলঙ্কার অর্থনীতি। এমনই ভয়ানক পরিস্থিতির স্বীকার যে দেশের ডিজেল ভাণ্ডার শেষ হয়ে গিয়েছে। খাদ্যশস্য সহ অত্যাবশ্যকীয় সামগ্রী ফুরিয়ে এসেছে। এক ভয়াবহ পরিস্থির স্বীকার সকলে। এই কঠিন পরিস্থিতিতে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিল ভারত (India)। শ্রীলঙ্কায় ১০ কোটি ডলারের ক্রেডিট লাইনে ৪০ হাজার টন ডিজেল (Diesel) পাঠানো হল। শনিবার সকালে ভারতীয় জাহাজটি শ্রীলঙ্কায় গিয়ে পৌঁছয়। বিকেল থেকে ডিজেল বিতরণ শুরু হবে বলে জানা গিয়েছে। ১৯৪৮ সালে ব্রিটেনের থেকে স্বাধীনতা লাভের পর থেকে এতটা ভয়ঙ্কর অবস্থার মুখে পড়তে হয়নি ২.২ কোটি জনসংখ্যা বিশিষ্ট দেশকে। অত্যাবশ্যকীয় পণ্য কেনা বা আমদানির জন্যও বিদেশি মুদ্রা নেই রাষ্ট্রপতি গোতাবায়া রাজাপক্ষের কাছে।

শ্রীলঙ্কায় বাস থেকে শুরু করে সমস্ত গণপরিবহনেই প্রায় ডিজেল ব্যবহার করা হয়। কিন্তু গোটা দেশে একটি পাম্পেও এক ফোঁটা ডিজেল নেই। ইতিমধ্যেই বন্ধ হয়ে গিয়েছে বেসরকারি বাস চলাচল। এই পরিস্থিতিতে ভারতের কাছ থেকে সাহায্য চাওয়ায় সেই ডাকে সাড়া দিয়ে ভারত থেকে শ্রীলঙ্কায় ৪০ হাজার টন ডিজেল পাঠানো হয়েছে। বর্তমানে শ্রীলঙ্কা সরকারের কাছে কোনও টাকা না থাকায় ১০ কোটি টাকার ক্রেডিট লাইনে এই তেল সরবরাহ করা হয়েছে। অন্যদিকে,দেশের আর্থিক সঙ্কটের কারণে বৃহস্পতিবার প্রেসিডেন্টের বাড়ির বাইরে কয়েক হাজার বিক্ষুব্ধ জনতা যে বিক্ষোভ দেখিয়েছেন। শুক্রবারই শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্ট গোতাবায়া রাজাপক্ষ গোটা দেশে জরুরি অবস্থার ঘোষণা করেছেন। এরফলে দেশের নিয়ন্ত্রণ সেনাবাহিনীর হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে। বিনা বিচারেই কাউকে গ্রেফতার ও দীর্ঘ সময় বন্দি করে রাখার ক্ষমতা দেওয়া হয়েছে সেনাবাহিনীর হাতে।

ভারতের এই সাহায্যের হাত বাড়ানোয় দুর্দশা কাটার আশঙ্কা

বিচার ছাড়াই যে কোনও ‘সন্দেহভাজন’ ব্যক্তিকে দীর্ঘদিন আটকে বা গ্রেফতার করে রাখার ছাড়পত্র দেওয়া হয়েছে সেনাকে। অর্থনীতি বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, শ্রীলঙ্কার আয়ের অন্যতম পথ ছিল পর্যটনই। করোনা সংক্রমণের কারণে সেই শিল্পই থমকে দাঁড়ায়। একইসঙ্গে প্রশাসনের ভুল সিদ্ধান্ত ও একের পর এক ঋণ গ্রহণকেও আর্থিক মন্দার অন্যতম কারণ হিসাবে মনে করছেন অনেকে। শুক্রবারের তথ্য অনুযায়ী, মার্চে শ্রীলঙ্কার মুদ্রাস্ফীতি ১৮.৭ শতাংশে বেড়ে দাঁড়িয়েছে। দেশে খাদ্যশস্যের দামও প্রায় ৩০ শতাংশ বেড়ে গিয়েছে। দেশের উত্তর ও মধ্যবর্তী অংশেও একাধিক জায়গায় অশান্তির আঁচ ছড়িয়েছে বলে সুত্রের খবর। পেট্রোল-ডিজেল না থাকায় গোটা দেশের ট্রাফিক থমকে দাঁড়িয়েছে। মাঝরাস্তাতেই অনেক গাড়ি থেমে যাওয়ায় ব্যাপক যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। গতকাল রাতে গল, মাতারা ও মোরাতুয়া সহ একাধিক জায়গায় সরকারের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ মিছিল বের হয়। আশা করা যায়, ভারতের এই সাহায্যের হাত বাড়ানোর ফলে কিছুটা দুর্দশা কাটবে।

শ্রীলঙ্কাকে ডিজেল সরবরাহের মাধ্যমে সাহায্যের হাত বাড়াল ভারত

আপনার মতামত দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

%d bloggers like this: