25 C
Kolkata
Thursday, December 1, 2022
বাড়িদেশ বিদেশমদ-মাফিয়া প্রেমে হাবুডুবু একবছরে ৫০ বার বিজনেস ক্লাসে ভ্রমণ

মদ-মাফিয়া প্রেমে হাবুডুবু একবছরে ৫০ বার বিজনেস ক্লাসে ভ্রমণ

ক্লাস টেন পর্যন্ত পড়া সমর ঘোষ প্রথমে ছিলেন সবজি বিক্রেতা । ভালোই দিন কাটছিল তবে টাকার লোভ যেকোনো মানুষকে পাল্টে দেয়। তিনি হয়ে উঠলেন মদ মাফিয়া। দুই হাতে টাকা রোজকার করছিলেন। কিছু দিনের মধ্যে হয়ে ওঠেন বিহারের বড়ো মদ মাফিয়া ।তবে ঘটনা সেটা নয় । তিনি বিমান সেবিকার প্রেমে হাবুডুবু খেয়ে একবছরে ৫০ বার বিজনেস ক্লাসে ভ্রমণ করে পুলিশের টনক নাড়িয়ে দিয়েছেন । তবে শেষ পর্যন্ত নিজের ভালোবাসায় ফেলতে সক্ষম হন উত্তরপ্রদেশের বুলন্দশহরের মেয়ে সোনিয়াকে । কিন্তু পূর্ণিয়ার পুলিশের সক্রিয়তায় ধরা পরেন তিনি । এখন শ্রীঘরেই বন্দি তিনি ।

পূর্ণিয়ার পুলিশ সুপার দয়াশঙ্কর জানান, “জেরায় আমরা জানতে পারি সমর ২০১৯ সাল থেকে ২০ পর্যন্ত বাগডোগরা থেকে দিল্লি পর্যন্ত একাধিকবার বিজনেস ক্লাসে ভ্রমণ করেছেন। বেশির ভাগ ক্ষেত্রে কাজ নয়, তিনি প্লেনে চড়তেন শুধুমাত্র এক বিমান সেবিকার জন্য ।” সমর ইসলামপুরের রামকৃষ্ণপুরের বাসিন্দা হলেও মদের ব্যবসা চালানোর জন্য বেশির ভাগ সময় ডালখোলায় থাকতেন। সমরের বাবা সুকুমার ঘোষ জলসম্পদ বিভাগে চতুর্থ শ্রেণির কর্মী । বাড়ির অবস্থা ভালো না থাকায় দশম শ্রেণিতেই পড়া বন্ধ করে স্থানীয় বাজারে সবজি বিক্রি করতে শুরু করেন। তাতেও বাড়ির অবস্থা ভালো হয়নি । ২০১৬ সালে বিহারে মদ বিক্রি নিষিদ্ধ করা হয় ।

তারপর বেশি টাকা উপার্জনের আসায় ঘুরতে ঘুরতে তার আলাপ হয় কমল, মধু, মুর্শেদ, শামিতুল্লাদের সাথে । তারা মদের ব্যবসা শুরু করেন আগেই । সেখানেই যোগ দেন সমর ।অল্পদিনের মধ্যে বেড়ে চলে কারবার । ডালখোলা চেকপোস্টকে ফাঁকি দিয়ে বিহারের দারভাঙ্গা, সুপোল, কাটিহার, সমস্তিপুর সহ বিভিন্ন জায়গায় বেআইনি মদ পাচার করতেন সমর । জিপিএস লাগানো পিকআপ ভ্যানে করে ঝাড়খণ্ডের রাস্তা ব্যবহার করে মদ পাচার করা হতো । দুই বছর ব্যবসা করেই কোটিপতি হয়ে ওঠেন সমর। বিহারের পাঁচটি জেলায় তাঁর নামে মোট আটটি এফআইআর দায়ের করা হয়েছে । সমর হয়ে ওঠেন সেই এলাকার একনম্বর ‘লিকার মাফিয়া’।তিনি নিয়মিত নৈশ পার্টিতে যাওয়া শুরু করেন। এইসব করে বেশ আনন্দেই কাটছিল জীবন ।

বেশি টাকা দিয়ে বাগডোগরা থেকে বিজনেস ক্লাসের বিমানে ওঠেন

এরই মধ্যে ২০১৯ সালের মাঝামাঝি সময় দিল্লি যাওয়ার প্রয়োজন পরে তার । এর আগে কখনও তিনি প্লেনে ভ্রমণ করেননি । কিন্তু জরুরি কাজ হওয়ায় বেশি টাকা দিয়ে বাগডোগরা থেকে বিজনেস ক্লাসের বিমানে ওঠেন তিনি । সেখানেই ডিউটি ছিল সোনিয়া নামে এক বিমান সেবিকার । তাকেই দেখেই প্রেমে পরে যান সমর । ফেরার পথে খোঁজ নিয়ে আবারও সেই ফ্লাইটেই ফেরেন । এরপর প্রথম তিনমাসে প্রায় কুড়িবার ওই সংস্থার প্লেনেই যাতায়াত করেন তিনি ।কোনও কাজ না থাকা সত্ত্বেও তিনি দিল্লি যেতেন। খোঁজখবর নিয়ে সেই বিমান সেবিকা যেই ফ্লাইটে থাকতেন সেখানে ইকনমি টিকিট না পেলে বেশি দামে বিজনেস ক্লাসের টিকিট কাটতেন তিনি ।এইভাবেই দু’জনের আলাপ এবং কথাবার্তা শুরু হয় । তদন্তে পুলিশ জানতে পারে বিভিন্ন সময় সোনিয়াকে মোটা টাকার টিপস দিতেন সমর ।

এক বছরে প্রায় পঞ্চাশবার বিজনেস ক্লাসে যাতায়াত এবং সমরের আর্থিক পরিস্থিতি বুঝতে পেরে সোনিয়া তাঁর সঙ্গে বন্ধুত্ব পাতান । কিছু সময় পীরে তিনিও সমরের প্রেমের ডাকে সাড়া দেন । মাসখানেকের মধ্যে বিয়ে হয়ে যায় তাদের । শুধু সোনিয়া নয় সমরের পরিবারের লোকেরা তখনও জানতেন না বাড়ির ছেলে মদের ব্যবসা করে ।আগের বছর ডিসেম্বর মাসে মুজফফরপুর পুলিশের হাতে লালবাবু রায় নামে এক মদ-মাফিয়া ধরা পড়ে যান । তাঁকেই জেরা করে পুলিশ সমরের বিভিন্ন গোপন ঠিকানা খুঁজে পায় । চলতি বছরে জানুয়ারি মাসের প্রথম সপ্তাহে স্ত্রীর আবদারে পূর্ণিয়া লাগোয়া একটি বারে পার্টি দেন সমর। পুলিশ সেই খবর আগে থেকেই জানতেন । তারা সাধারণ পোশাকে তাদের মাঝে যান এবং পার্টির মাঝ খানে থেকেই তুকে নেন সমর কে । তার পরেই তাকে জেরা করে সমস্ত বৃত্তান্ত জানতে পারেন পুলিশ কর্তৃপক্ষ ।

মদ-মাফিয়া প্রেমে হাবুডুবু একবছরে ৫০ বার বিজনেস ক্লাসে ভ্রমণ

আপনার মতামত দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

%d bloggers like this: