25 C
Kolkata
Sunday, September 25, 2022
বাড়িরাজনীতিপ্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যের এবারেও ভোট দিতে পারলেন না

প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যের এবারেও ভোট দিতে পারলেন না

কাল শেষ হলো কলকাতা পুরভোট। সকালে কিছু কিছু জায়গায় ভোট কেন্দ্র করে অশান্তির খবর আসছিল । তৃতীয়বারের জন্য আবার কি চারিদিকে ঘাসফুল ফুটবে এই প্রশ্নই এখন ঘুরছে রাজ্য রাজনীতিতে । পুরভোটের ফল প্রকাশের পরেই এই প্রশ্নের উত্তর মিলবে। করোনা পরিস্থিতিতে প্রায় এক বছরের জন্য স্থগিত হয়ে গিয়েছিল কলকাতা পুরসভার ভোট । এদিন ভোট দিতে পারলেন না, রাজ্যের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য । তিনি ভোট দিতে না পারলেও, ভোট দিয়েছেন তার স্ত্রী মীরা ভট্টাচার্য ও মেয়ে সুচেতনা । আগে সব ভোটেই পরিবারের সঙ্গেই ভোট দিতে আসতেন বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যকে।

তবে গত কয়েকটি নির্বাচনে তিনি ভোট দিতে পারেননি । বিধানসভা নির্বাচনেও ভোট দিতে পারেননি ।বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যের স্ত্রী জানান , তার শরীর একেবারেই দুর্বল উঠে বসতে পারেন না তিনি তবে মস্তিষ্ক একেবারে পরিষ্কার। পুর নির্বাচনের বিষয়ে প্রতিটি খবরই রেখেছেন তিনি । বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যের মেয়ে জানিয়েছেন, বিছানা ছেড়ে একেদম উঠতে পারেন না। প্রতিটি ভোটে বাবার সঙ্গেই ভোট দিতে আসতেন। তাই একটা খারাপলাগা তো আছেই। সময়ের সাথে সাথে বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যের শারীরিক অবস্থার অবনতি হচ্ছে । তাঁর সিওপিডি–এর সমস্যা রয়েছে । সব সময়ই বাইরে থেকে অক্সিজেন দিতে হয়। গত বছর কোভিডে আক্রান্ত হয়েছিলেন তিনি । তার পর থেকেই বেড়েছে শারীরিক সমস্যা ।গত তিনটি নির্বাচনে শারীরিক অসুস্থততার কারণেই ভোট দিতে পারেননি তিনি । সেই আক্ষেপও তার অনেক রয়েছে বলে জানিয়েছেন স্ত্রী মীরা ভট্টাচার্য ।

২০১৭ সালের পর থেকেই আর বাড়ির বাইরে যান না রাজ্যের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যের

২০১৭ সালের পর থেকেই আর বাড়ির বাইরে যান না রাজ্যের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যের । চোখে প্রায় দেখতেই পান না। বলা হচ্ছে তাঁর রেটিনা ক্রমেই পাতলা হয়ে শুকিয়ে যাচ্ছে। বই পড়তে বা টেলিভিশন একদমই দেখতে পান না। টিভিতে নিয়মিত খবর শোনেন। এবং স্ত্রী মীরা ও তাঁর আপ্তসহায়ক প্রতিদিন খবরের কাগজ পড়ে শোনান তাকে ।কাল ভোট শুরু হওয়া থেকেই অশান্তির সৃষ্টি হয় । কয়েকটি জায়গায় বোমাবাজির খবর পাওয়া যায়। শিয়ালদহ, বেলেঘাটায় বোমাবাজি হয়। টাকি বয়েজ স্কুলের সামনে বোমাবাজিতে 2 জন আহত হন । কোথাও আবার ছাপ্পা ভোটের অভিযোগ ওঠে। হাতেনাতে ধরা পড়ে ভুয়ো ভোটার । বিজেপি প্রার্থী মীনাদেবী পুরোহিতের পোশাক ছিঁড়ে দেওয়ার অভিযোগ ওঠে। আবার বেলেঘাটায় ৩৬ নম্বর ওয়ার্ডে সিসিটিভি ক্যামেরা কাগজের স্টিকার লাগিয়ে ঢেকে ছাপ্পা ভোট দেওয়ার অভিযোগ ওঠে।

বিরোধীরা শাসকদলের বিরুদ্ধে পোলিং এজেন্ট বসতে ‘বাধা’ দেওয়ার অভিযোগও তোলেন। তবে, যদিও এজেন্ট প্রসঙ্গে বিজেপিরঅভিযোগ উড়িয়ে অভিষেক বলেন , ‘বিরোধীরা এজেন্ট দিতে না পারলে তৃণমূল কী করবে?’ একইসঙ্গে তিনি বিজেপির উদ্দেশে চ্যালেঞ্জ দিয়ে আরও বলেন, ত্রিপুরা পুরভোটে সন্ত্রাসের তথ্যপ্রমাণ সব আদালতে জমা দিয়েছে তৃণমূল । এইজন্য বিজেপির কাছে কোনও প্রমাণ থাকলে, তা নিয়ে আদালতে যাক । বলা যায় পুরভোট ঘিরে এদিন সকাল থেকেই উত্তেজনা ছিল শীর্ষে ।

প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যের এবারেও ভোট দিতে পারলেন না

আপনার মতামত দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

%d bloggers like this: