25 C
Kolkata
Tuesday, November 29, 2022
বাড়িখেলা"সবাইকে শূন্য থেকে শুরু করতে হয় কিন্তু সবাই শেষটাই দেখে।" মন্তব্য সৌরভের

“সবাইকে শূন্য থেকে শুরু করতে হয় কিন্তু সবাই শেষটাই দেখে।” মন্তব্য সৌরভের

রাজনীতির শিকার হয়ে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডে সভাপতির (BCCI President) পদ থেকে সরে যেতে হল সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়কে (Sourav Gangopadhyay)। নিজের পদ থেকে সরে যাওয়ার পর বৃহস্পতিবার এক বেসরকারি ব্যাঙ্কের অনুষ্ঠানে এই প্রথম বার মুখ খুললেন ভারতীয় ক্রিকেট দলের প্রাক্তন অধিনায়ক। সৌরভ জানিয়েছেন, জীবনের ক্ষেত্রে তিনি একটি করে পদক্ষেপ করতে পছন্দ করেন। জীবনের লড়াইতে দীর্ঘ পথ এগিয়ে যাওয়ার জন্য কিন্তু তিনি এই পথই অবলম্বন করবেন বলে জানিয়েছে। এদিন তিনি বলেন, “ছোট ছোট লক্ষ্য নিয়ে এগিয়ে ছিলাম।

কিন্তু বোঝার চেষ্টা করে না যে আমাদের সবাইকে শূন্য থেকে শুরু করতে হয়

লম্বা যাত্রায় সফল হতে গেলে ছোট ছোট পদক্ষেপ করে এগিয়ে যেতে হয়। শুরুতেই এক লাফে সাফল্যে পৌঁছে যেতে চাইলে তা সম্ভব হয় না। সেটা হতে পারে না। এক দিনে কেউ সচিন তেন্ডুলকর হয় না। নরেন্দ্র মোদী হয় না। সবাই শেষটাই দেখে। কিন্তু বোঝার চেষ্টা করে না যে আমাদের সবাইকে শূন্য থেকে শুরু করতে হয়। প্রশাসক হিসাবে হয়তো আমার এখানেই ইতি। এখন হয়তো আমাকে নতুন ভূমিকায় দেখা যাবে। সেখানেও শূন্য থেকে শুরু করতে হবে।” এদিন তিনি জানান প্রশাসক হিসাবে তিন বছর উপভোগ করেছেন। এই প্রসঙ্গে সৌরভ বলেন, “প্রশাসক হিসাবে অনেকটা সময় কাটিয়েছি।

তবে খেলাধুলো অনেক বেশি কঠিন ছিল। তবে যে সময়টা বোর্ডে কাটিয়েছি, তা উপভোগ করেছি। খেয়াল করলে দেখবেন, গত তিন বছরে ভারতীয় ক্রিকেটে অনেক কিছুই হয়েছে। কোভিডের মতো দুঃসহ সময়ে সফল ভাবে আইপিএল আয়োজন করেছি আমরা। কমনওয়েলথ গেমসে ভারতের মহিলা ক্রিকেট দল রুপো পেয়েছে। ভারতের পুরুষ দল বিদেশের মাটিতে অভাবনীয় সাফল্য পেয়েছে। ভারতীয় ক্রিকেটে একটা অন্য রকম শক্তি দেখা যাচ্ছে। তবে ক্রিকেটার হিসাবে সময়টা আলাদা ছিল। সারা জীবন ধরে কেউ প্রশাসক থাকতে পারে না। নিজের উপর বিশ্বাস রাখা জীবনে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপার।

প্রত্যেককেই জীবনে পরীক্ষায় বসতে হয়, প্রত্যাখ্যাত হতে হয়। তবে নিজের উপর বিশ্বাস কখনও বদলায় না।” নিজের সফল ক্রিকেট জীবন সম্পর্কে মহারাজ জানান, “পঙ্কজদা (রায়) অবসর নেওয়ার পর বাংলার থেকে সে ভাবে কোনও ক্রিকেটারই জাতীয় দলে সুযোগ পাচ্ছিল না। আমি বরাবর বিশ্বাস করে এসেছি যে, পূর্বাঞ্চলে অনেক প্রতিভাবান ক্রিকেটার রয়েছে। অনেক প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটার রয়েছে। কিন্তু জাতীয় দলে তার প্রতিফলন দেখতে পাওয়া যেত না। আমি কখনও অতীতের দিকে ফিরে তাকাইনি। বর্তমানে বাঁচতে ভালবাসি। ভারতের হয়ে ১০০-র বেশি টেস্ট খেলেছি।

কিন্তু ও-ই ১৫ বছর আমার জীবনের সবচেয়ে ভাল সময়

লর্ডসে টেস্ট অভিষেক এখনও আমার জীবনের একটা স্মরণীয় মুহূর্ত।” ভারতের প্রাক্তন অধিনায়ক আরও বলেন, “আমি সবাইকে বলি, দেশের হয়ে খেলার থেকে বড় আর কিছু হয় না। আমি সিএবি-র প্রেসিডেন্ট ছিলাম, বিসিসিআইয়ের প্রেসিডেন্ট ছিলাম, কিন্তু ও-ই ১৫ বছর আমার জীবনের সবচেয়ে ভাল সময়। তখন রোজ সকালে ঘুম থেকে উঠতাম সফল হওয়ার জন্যে। হোটেল থেকে মাঠে যাওয়ার সময় চিন্তা করতাম আজ দিনটা আমার জন্যে কতটা গুরুত্বপূর্ণ হতে চলেছে। কারণ, রান না পেলে আমাকে দলে আর নেওয়া হবে না। দিনের শেষে শতরান পেলে সবচেয়ে ভাল লাগত।”

“সবাইকে শূন্য থেকে শুরু করতে হয় কিন্তু সবাই শেষটাই দেখে।” মন্তব্য সৌরভের

আপনার মতামত দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

%d bloggers like this: