25 C
Kolkata
Monday, December 5, 2022
বাড়িখেলাস্টার্লিং ও কেনের দাপটে শেষ আটে ইংল্যান্ড

স্টার্লিং ও কেনের দাপটে শেষ আটে ইংল্যান্ড

নিজস্ব প্রতিবেদন- একেই বলে ওস্তাদের মার শেষ রাতে। ঠিক সময়ে দু’টি গোল করে ইংল্যান্ডকে ইউরোর কোয়ার্টার ফাইনালে নিয়ে গেল রহিম স্টার্লিং ও হ্যারি কেন। জার্মানদের হারিয়ে শেষ আটে বাড়তি মনোবল নিয়ে নামবে সাউথগেটের দল। ৭৫ মিনিটে ইংল্যান্ডের জয়সূচক গোল। হ্যারি কেনের সঙ্গে ওয়াল খেলে বক্সে ঢুকে যায় রহিম স্টার্লিং। বাঁ-দিক থেকে উঠে আসা লুকা শ’কে থ্রু বাড়ায় কেন। লুকার মাইনাস নিখুঁত টাচে লক্ষ্যভেদ করে স্টার্লিং (১-০)। ৮৬ মিনিটে গ্রেলিসের মাইনাস থেকে হেডে লক্ষ্যভেদ করে হ্যারি কেন (২-০)। এবার ইউরোয় প্রথম গোলের স্বাদ পেল হ্যারি। তবে জার্মানির লড়াই শেষ করে দিল টমাস মুলার। ৮১ মিনিটে সামনে একা গোলরক্ষককে পেয়ে ওপেন সিটার মিস করে সে। জার্মানির ডিফেন্স নড়বড়ে। তার ফায়দা তুলেছে ইংল্যান্ড

প্রথমার্ধে মন ভরাতে ব্যর্থ জার্মানি ও ইংল্যান্ড

প্রথমার্ধে জার্মানির নিশ্চিত পতন রোধ করে স্টপার ম্যাট হামেলস। বিরতির ঠিক আগে জার্মানির তিন কাঠির সামনে একটা বল টোকা দিলেই গোল, এমন পরিস্থিতিতে অনবদ্য স্লাইড করে বল বাইরে করে দেয় হামেলস। প্রথমার্ধে মন ভরাতে ব্যর্থ জার্মানি ও ইংল্যান্ড। এদিন রক্ষণ ও মাঝমাঠ জমাট রেখে প্রতি-আক্রমণে ফায়দা তোলাই লক্ষ্য ছিল দু’টি দলের। সেইভাবেই দল সাজিয়েছিলেন জার্মানি ও ইংল্যান্ড দলের কোচ জোয়াকিম লো ও গ্যারেথ সাউথগেট। জার্মানি শুরু করে ৩-৪-২-১ ফর্মেশনে। ইংল্যান্ডের ৩-৪-৩ ফর্মেশন। দু’টি দলই নিজেদের মধ্যে প্রচুর পাস খেলছে। কিন্তু পেনিট্রেটিং জোনে খেই হারিয়ে ফেলছে। ওয়েম্বলি স্টেডিয়াম ইংল্যান্ডের চেনা মাঠ। ঘরের মাঠ খেলার সুবিধা পেয়েছে সাউথগেটের দল। ইংল্যান্ড উইং আক্রমণে সপ্রতিভ হলেও জার্মানি চেষ্টা করেছে মিডল করিডর দিয়ে মুভ তৈরি করতে। উইং দিয়ে ইংল্যান্ডের রহিম স্টার্লিং গতি বাড়িয়ে বেশ কয়েকবার পেনিট্রেট করেছে। কিন্তু সে শেষ পর্যন্ত জার্মানির রক্ষণ জঙ্গলে হারিয়ে গিয়েছে। ১৬ মিনিটে প্রায় ২৫ গজ দূর থেকে স্টার্লিংয়ের শট বাঁদিকে ঝাঁপিয়ে দুরন্ত সেভ করে ম্যানুয়েল ন্যুয়ের।

টিমোর মাথা ঠান্ডা রেখে গোলের প্ল্যান বি

প্রতি-আক্রমণ দু’টি দলের কৌশল হলেও তা বাস্তবায়িত করে লক্ষ্যে সফল হওয়ার কোনও প্রচেষ্টা ছিল না দু’টি দলের। প্রতি-আক্রমণে সফল হতে গেলে গতিমন্থরতার কোনও স্থান নেই। ৩২ মিনিটে জার্মানির সিঙ্গল স্ট্রাইকার টিমো ওয়ার্নারের গোল মিসের কোনও ক্ষমা নেই। একের বিরুদ্ধে এক পরিস্থিতিতে ইংল্যান্ড গোলরক্ষক পিকফোর্ডের গায়ে সে অবলীলায় মারে। তবে তা বলে ইংলিশ গোলরক্ষকের কৃতিত্বকে কোনও ভাবেই খাটো করা যাবে না। ঠিক অনুমান করে সে গোলের কোণ ছোট করে দেয়। সেখানে টিমোর মাথা ঠান্ডা রেখে গোলের প্ল্যান বি তৈরি রাখা উচিত। একজন বড় স্ট্রাইকারের বড় গুণ, প্রয়োজন অনুযায়ী উদ্ভাবনী শক্তির প্রয়োগ।

স্টার্লিং ও কেনের দাপটে শেষ আটে ইংল্যান্ড:

আপনার মতামত দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

%d bloggers like this: