25 C
Kolkata
Monday, October 3, 2022
বাড়িরাজ্যকলকাতাশুরু হল লক্ষ্মীর ভাণ্ডার প্রকল্পের টাকা দেওয়া। ক্ষমতায় এসে প্রতিশ্রুতি রেখেছেন এমনটাই...

শুরু হল লক্ষ্মীর ভাণ্ডার প্রকল্পের টাকা দেওয়া। ক্ষমতায় এসে প্রতিশ্রুতি রেখেছেন এমনটাই জানালেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

একুশের বিধানসভা নির্বাচনে তৃতীয়বারের জন্য ক্ষমতায় এসে একাধিক জনদরদী প্রকল্পের ঘোষণা করেছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। নির্বাচনী ইস্তাহারেই তিনি বিভিন্ন প্রকল্পের কথা বলেছিলেন। ক্ষমতায় এলে তিনি সেই সব প্রকল্পের সুচনা করবেন বলে জানিয়েছিলেন। ক্ষমতায় এসে তিনি তাঁর প্রতিশ্রুতি রেখেছেন ইতিমধ্যেই। পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী ইতিমধ্যেই দুয়ারে রেশন স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ড লক্ষীর ভান্ডার,সহ একাধিক প্রকল্পের কাজ হয়েছে। তবে,এই সব প্রকল্পের মধ্যে সবথেকে বেশি সাড়া পড়েছে লক্ষ্মীর ভাণ্ডার প্রকল্পে। ইতিমধ্যেই এই লক্ষ্মীর ভাণ্ডার প্রকল্পের সুবিধা পেতে, রাজ্যজুড়ে বহু মহিলা আবেদন করেছেন

এবার পুজোর আগেই এল বড় সুখবর। লক্ষ্মীর প্রকল্পে যারা আবেদন করেছিলেন, তাঁদের জন্য প্রথম পর্যায়ে প্রায় আড়াই কোটি টাকা বরাদ্দ করল রাজ্য সরকার। গত সোমবার নারী ও শিশুকল্যাণ দফতরের পক্ষ থেকে রাজ্যের জেলা শাসকদের সেই বরাদ্দ টাকা পাঠিয়ে দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। নবান্ন সূত্রে খবর প্রথম পর্যায়ে ২ কোটি ৪৮ লক্ষ ৬০ হাজার টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আগেই জানিয়েছিলেন যে, লক্ষ্মীর ভাণ্ডারে যাঁরা আবেদন করেছেন তাঁদের একটি অংশের আবেদনপত্র খতিয়ে দেখার কাজ শেষ হয়েছে। তাঁদের আবেদনপত্র খতিয়ে দেখার পর প্রথম পর্যায়ে এই টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে বলে নবান্ন সূত্রে জানা গিয়েছে। এর পরের পর্যায়ে দফায় দফায় আবেদনপত্র খতিয়ে দেখে টাকা বরাদ্দ করবে রাজ্য সরকার।

গত ১৬ আগস্ট থেকে শুরু হয়েছিল দুয়ারে সরকার প্রকল্প। শেষ হয় ১৭ সেপ্টেম্বর। সব মিলিয়ে শিবিরে এসেছিলেন ৩ কোটি ৫৮ লক্ষ ৭৪ হাজার ৭৯১ জন। লক্ষ্মীর ভাণ্ডারে আবেদন জমা পড়েছে ১ কোটি ৭৯ লক্ষ ২৬ হাজার ৩৬৮ টি। এর পরের পর্যায়ে দফায় দফায় আবেদনপত্র খতিয়ে দেখে টাকা দেবে রাজ্য সরকার এমনটাই সূত্রের খবর। সূত্রের এও খবর যে, সেপ্টেম্বর থেকে যেহেতু টাকা দেওয়ার কথা তাই অক্টোবরে কেউ যদি টাকা পান তাহলে তিনি ২ মাসের টাকা পাবেন।এই প্রকল্পে এসসি, এসটি এবং ওবিসিরা পাবেন এক হাজার টাকা করে এবং সাধারণ মহিলাদের ক্ষেত্রে ৫০০ টাকা l

লক্ষ্মীর ভাণ্ডার : পুজোর আগেই যাতে রাজ্যের মহিলারা এই আর্থিক

পুজোর আগেই যাতে রাজ্যের মহিলারা এই আর্থিক সাহায্য পেয়ে যান, তার জন্য প্রশাসনিক আধিকারিকদের আগেই নির্দেশ দিয়েছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আবেদনপত্র জমা পড়ার সঙ্গে সঙ্গেই তা খতিয়ে দেখার কাজ শুরু করেছিলেন সরকারি কর্মীরা। জমা পড়া আবেদন পত্র খতিয়ে দেখে যাঁরা যোগ্য বলে বিবেচিত হয়েছে তাঁদের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে আর্থিক সাহায্য পৌঁছে যাবে।পরে বাকিরাও একইভাবে দফায় দফায় টাকা পাবেন।নবান্ন সূত্রে জানা গিয়েছে, প্রথম পর্যায়ে যে ২ কোটি ৪৮ লক্ষ ৬০ হাজার টাকা বরাদ্দ হয়েছে, তার মধ্যে সব থেকে বেশি অর্থ যাচ্ছে দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলায়। এই জেলার জন্য বরাদ্দ করা হয়েছে প্রায় ২৯ লক্ষ ৮১ হাজার টাকা। এর পরেই রয়েছে উত্তর ২৪ পরগনা। সেখানে বরাদ্দের পরিমাণ ২৫ লক্ষ ৯৬ হাজার টাকা। পূর্ব মেদিনীপুরে ১৯ লক্ষ ৮৭ হাজার, মুর্শিদাবাদে ১৭ লক্ষ ৪৫ হাজার টাকা। মালদহ ও পশ্চিম মেদিনীপুর পেয়েছে ১০ লাখ টাকা করে। হুগলি পেয়েছে ১৩ লাখের বেশি, পূর্ব বর্ধমান ও হাওড়া পেয়েছে যথাক্রমে ১৪ ও ১৫ লাখেরও বেশি টাকা।

শুরু হল লক্ষ্মীর ভাণ্ডার প্রকল্পের টাকা দেওয়া। ক্ষমতায় এসে প্রতিশ্রুতি রেখেছেন এমনটাই জানালেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

আপনার মতামত দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

%d bloggers like this: