25 C
Kolkata
Thursday, December 1, 2022
বাড়িরাজনীতিঅনুব্রত জেলে, কিন্তু কেষ্টর কালীকে অলংকারে সাজাবে কে?

অনুব্রত জেলে, কিন্তু কেষ্টর কালীকে অলংকারে সাজাবে কে?

আর মাত্র ২ দিনের অপেক্ষা তারপরই শুরু কালী পুজো (Kali Puja)। প্রতি বছর ধুমধাম করে নিজের হাতে মা কে সাজিয়ে কালীপুজো করেন বীরভূমের (Birbhum) তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল (Anubrata Mondal)। গোরু পাচার মামলায় গ্রেফতার হয়েছেন তিনি। সেই কারণে এই বছর তিনি জেলে দিন কাটাছেন। কালী পুজোর সময়তেও জেলেই থাকবেন তিনি। এই মত অবস্থায় প্রশ্ন উঠছিল, এই বছর কেষ্টর অনুপস্থিতিতে কে নেবে সেই কালীপুজোর দায়িত্ব? এই প্রসঙ্গে বীরভূম জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের সহ সভাপতি মলয় মুখোপাধ্যায় জানান, “জেলা কমিটিতে সিদ্ধান্ত হয়েছে, প্রতিবছরের মতো এবছরও মায়ের পুজো হবে। জেলা কমিটির সদস্য ও শাখা সংগঠন মিলিয়ে মোট ১৫০ জন ১০০০ টাকা করে চাঁদা দেবে।

ব্যক্তিগত অসুবিধা ছাড়া জেলা কমিটির সদস্যদের সেদিন পার্টি অফিসে উপস্থিত থাকতে বলা হয়েছে।” চন্দ্রনাথ সিংহ বলেন, “কেষ্টদার অভাব অনুভূত হবে ঠিকই, কিন্তু তাঁর দেখানো পথ অনুসরণ করেই পুজোর আয়োজন করা হচ্ছে। ইতিমধ্যেই মূর্তি তৈরির কাজ শুরু হয়েছে। পুজোর প্রস্তুতি নিতেও শুরু করেছে তৃণমূলের কর্মী-সমর্থকরা। কোনও কিছুতেই খামতি থাকবে না।” প্রসঙ্গত, বীরভূমে তৃণমূল কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত কালী পুজো এলাকাবাসীর কাছে ‘কেষ্টর কালী’ নামে খ্যাত। তিনি মা কালীর একনিষ্ঠ ভক্ত। মায়ের প্রতি তার আলাদাই ভালোবাসা। ১৯৮৮ সাল থেকে এই পুজো শুরু হয়েছিল। যত দিন গিয়েছে এই পুজোর জাঁকজমক বেড়েছে। লোক মুখে প্রচার হয়েছে ‘কেষ্ট কালীর’ কথা।

কিন্তু এই বছর তিনি জেলে থাকায় খুব যতসামান্য গয়নায় মাকে সাজানো হবে

উল্লেখ্য, ২০১৮ সালে কেষ্টর পুজোয় কালী প্রতিমাকে ১৮০ ভরি সোনার গয়না দিয়ে সাজানো হয়েছিল। ২০১৯ সালে ওই গয়নার পরিমাণ বেড়ে ২৬০ ভরি হয়েছিল। ২০২০ সালে মা কে ৩০০ ভরি গয়না দিয়ে সাজানো হয়েছিল। ২০২১ সালে ওই সোনার গহনার পরিমান বেড়ে দাঁড়ায় ৫৭০ ভরিতে। মায়ের গহনায় রয়েছে সীতাহার, চেন, গলার চিক, চূড়, রতনচূড়, মান্তাসা, বাজুবন্ধ, টায়রা-টিকলিও ইত্যাদি। এর আগে প্রতি বছর অনুব্রত মণ্ডল নিজেই ওই গহনার মাধ্যমে দেবীকে গয়নায় সাজাতেন। কিন্তু এই বছর তিনি জেলে থাকায় খুব যতসামান্য গয়না মুকুট, গলায় হার, কানের দুল আর পায়ের নূপুরের মাধ্যমে মাকে সাজানো হবে। এই বছর মাকে গহনা পরাবেন পুরোহিত রেবতী রঞ্জন বন্দ্যোপাধ্যায় এবং তাঁর সহকারী পুরোহিত।

অনুব্রত জেলে, কিন্তু কেষ্টর কালীকে অলংকারে সাজাবে কে?

আপনার মতামত দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

%d bloggers like this: