25 C
Kolkata
Monday, October 3, 2022
বাড়িরাজ্যকলকাতাখুদে ভক্তের ভালোবাসায় আপ্লুত মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

খুদে ভক্তের ভালোবাসায় আপ্লুত মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

নিজস্ব সংবাদদাতা, অর্পিতা মন্ডল- চলচ্চিত্র দুনিয়ায় এমন টাতো হয়েই থাকে‌। নিজের প্রিয় অভিনেতা অভিনেত্রী দের কাছ থেকে দেখার জন্য দূর দূরান্ত থেকে ভীড় করে মানুষ। ঠিক এরকমই এক ঘটনা ঘটেছে তবে তা কোনো চিত্র তারকার জন্য নয়, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কে কাছ থেকে দেখে তার শরীরের অবস্থা জানার আগ্রহে।

ঘটনাটি ঘটিয়েছে বাঁকুড়া জেলার কোতুলপুরের বাসিন্দা অণ্বেষা। কুলটির এক বেসরকারি ইংরাজি মাধ্যম স্কুলের ক্লাস ফোরের ছাত্রী সে। অণ্বেষা প্রতিদিন খবরের কাগজ পড়ে ও প্রতিদিন নিয়ম করে নিউজ চ্যানেল দেখে। তাই নন্দীগ্রামে গিয়ে যে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আহত হয়েছেন,তার পায়ে লেগেছে, সে সব খবরই ছিল তার কাছে। সে কারণেই মঙ্গলবার দুপুরে মামা আর দাদুর সঙ্গে সে চলে আসে রঘুনাথপুরে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সভায়।

রঘুনাথাপুরের সভায় দুপুর ২:৪৫ নাগাদ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের হেলিকপ্টার অবতরণ করে হেলিপ্যাডে। তার অনেক আগে থেকেই সেখানে হাজির ছিল অণ্বেষা। ছোট্ট মেয়েটি বলে, “উনি কেমন আছেন সেটা আমি ওনার কাছ থেকেই শুনতে চেয়েছিলাম।”

এদিন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় হেলিকপ্টার থেকে নেমে হাত নাড়তে নাড়তে এগিয়ে যাচ্ছিলেন হুইল চেয়ারে চেপে। তখন তাঁর নজরে আসে একটি বাচ্চা মেয়ে তার দিকে হাত নাড়ছে। জানতে চাইছে তিনি কেমন আছেন। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মঞ্চে উঠে তাঁর নিরাপত্তারক্ষীদের বলেন ওই বাচ্চা মেয়েকে ডেকে দিতে। অণ্বেষাকে মঞ্চে ডেকে নেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। অণ্বেষা মঞ্চে উঠে তাঁর দাদুর লেখা একটা চিঠি মুখ্যমন্ত্রী কে দেয়। এমনকি সে জিজ্ঞেস করে, পা কেমন আছে? পরামর্শও দেয়, ঠিক করে যেন ওষুধ খেয়ে নেন তিনি।

মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রীও ধৈর্য্য ধরে তার কথা শোনেন। তারপর অণ্বেষাকে একটা অটোগ্রাফ দেন তার ডাইরিতে। মঞ্চে থেকে নেমে ফের হেলিকপ্টারে ওঠার সময়ও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নজরে আসে অণ্বেষা ঠায় দাদু আর মামার সঙ্গে দাঁড়িয়ে আছে। ফের তাঁকে উদ্দেশ্য করে হাত নাড়েন মুখ্যমন্ত্রী। এ যেন ডবল পাওয়া। আর এতেই বেজায় খুশি ছোট্ট অণ্বেষা।

আপনার মতামত দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

%d bloggers like this: